৭ বছর ধরে কৃষকের ধান কাটছে স্বপ্নদেখো

৭ বছর ধরে কৃষকের ধান কাটছে স্বপ্নদেখো

৭ বছর ধরে বছরের বিভিন্ন সময় কৃষকের ধান কেটে দিচ্ছেন স্বপ্নদেখো’র সদস্যরা। এ বছরও তার ব্যত্যয় ঘটেনি। রোববার করোনার এই ভয়াবহ মুহূর্তে ‘স্বপ্নদেখো সমাজ কল্যাণ সংস্থা’র উদ্যোগেস্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে যশোরের দুই দরিদ্র কৃষকের ধান কেটে দিয়েছেন সংগঠনের ১০ সদস্য। এদিন ভোর ৭টা হতে দুপুর ১২টা পর্যন্ত যশোর সদর উপজেলার হাশিমপুর গ্রামের কৃষক শাহিন এর ১২ কাঠা ধান কেটে দেন স্বপ্নদেখো’র সদস্যরা।
স্বপ্নদেখো’র সভাপতি জহির ইকবাল বলেন, করোনাভাইরাসের এই মহামারিতে আমাদের সকলকেই নিজ জায়গা থেকে দরিদ্র, অসহায় মানুষের পাশে এসে দাঁড়াতে হবে। আমরা সরকারের দেয়া নিয়ম মেনে দরিদ্র কৃষকের পাশে এসে দাঁড়িয়েছি। যথাসম্ভব তাদেরকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছি। আমরা তরুণ-যুবদেরকে বার্তা দিতে চাই- শুধুমাত্র ফেসবুক জগতে না থেকে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে দরিদ্র কৃষকের পাশে দাঁড়ান। ২০১৩ সাল থেকে প্রতি বছরই আমরা দরিদ্র কৃষকের পাশে দাঁড়ায়, তাদেরকে ধান কেটে সহযোগিতা করি। তবে এবারের পরিস্থিতি সম্পূর্ণ ভিন্ন। খোঁজ রাখছি, ভবিষৎ আরো দরিদ্র কৃষকের ধান কেটে দিতে চাই আমরা।
কৃষক শাহিন জানান, আমরা এখন কষ্টে আছি। ভাইরাসের কারণে ধান কাটা শ্রমিকের অভাব দেখা দিয়েছে। কেউ রাজি হলেও বেশি টাকা চাচ্ছে। স্বপ্নদেখো সংগঠনটি আমাদের মতো দরিদ্র কৃষকের ধান স্বেচ্ছায় কেটে দিচ্ছে, তাদেরকে অনেক ধন্যবাদ।
সংগঠনটি নিয়মিত তাদের সামাজিক কার্যক্রম করে যাচ্ছে। করোনাভাইরাসকালে তারা ইতিমধ্যে মনোহরপুর অঞ্চলের ৩১ জনপ্রতিবন্ধী শিশুদের মাঝে মাস্ক, সাবান, ওষুধ ও প্রয়োজনীয় খাদ্যদ্রব্য সহযোগিতা করেছে।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *